রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন

আন্তর্জাতিক গণসাক্ষরতা দিবস আজ

ঝরে পড়া ২০ লাখ শিশু লেখাপড়ার সুযোগ হারাচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • খবর আপডেট সময় : শুক্রবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৩৮ এই পর্যন্ত দেখেছেন

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস আজ শুক্রবার । এ বছরও যথাযথভাবে দিবসটি পালন করবে সরকার। এ বছর দিবসের প্রতিপাদ্য ‘পরিবর্তনশীল ও শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে সাক্ষরতার প্রসার’। কিন্তু চলতি বছর থেকে সাক্ষরতা কর্মসূচিতে বরাদ্দ বন্ধ রেখেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। ফলে ঝরে পড়া ২০ লাখ শিশু লেখাপড়ার সুযোগ হারাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো থেকে জানা গেছে, দেশে বর্তমানে সাক্ষরতার হার ৭৬ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশকে শতভাগ নিরক্ষরমুক্ত করতে প্রাথমিক শিক্ষাআইন পাস করা হয়। ১৯৯৮ সালে সাক্ষরতা বিস্তারে সাফল্যের স্বীকৃতি হিসেবে ’আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা পুরস্কার ১৯৯৮’ লাভ করে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক এই সম্মান পাওয়ার পর থেকে সাক্ষরতার হার কমতে শুরু করে। শুধু তাই নয়, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতায় মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প বন্ধ হয়ে যায়। চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির (পিইডিপি-৪) সাব-কম্পোনেন্ট চলমান বলা হলেও গত জুলাই থেকে অর্থায়ন বন্ধ রয়েছে।

সাক্ষরতা কী

মন্ত্রণালয় জানায়, সাক্ষরতা বলতে শুধু অক্ষরজ্ঞান বা স্বাক্ষর করতে পারা নয়। ‘সাক্ষরতা’ বলতে মাতৃভাষায় পড়তে পারা, অনুধাবন করা, মৌখিকভাবে এবং লিখিতভাবে বিভিন্ন বিষয় ব্যাখ্যা করতে পারা, যোগাযোগ স্থাপন করতে পারা এবং গণনা করতে পারা।

মহাপরিচালক ড. মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘সাক্ষরতা বলতে শুধু অক্ষর বা বর্ণ চেনা নয়, লিখতে, পড়তে ও বলতে পারা। সাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন ব্যক্তি ন্যূনতম লেখাপড়া করতে পারবে। গণনা করা ও সাধারণ হিসাব করতে পারবে। পত্রিকা পড়তে ও বুঝতে পারবে। শুধু নাম সাক্ষর করতে পারলেই সাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন বলা যাবে না।

বাংলাদেশ প্রেক্ষাপট

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমান ১৯৭০ সালের ২৮ অক্টোবর বেতারে ভাষণে বলেছিলেন— ‘নিরক্ষরতা অবশ্যই দূর করতে হবে। পাঁচ বছর বয়স্ক শিশুদের বাধ্যতামূলক অবৈতনিক প্রাথমিক শিক্ষাদানের জন্য একটি ক্র্যাশ প্রোগ্রাম চালু করতে হবে।’ এরপর সাক্ষরতা বিস্তারে আন্তর্জাতিক ফোরামের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সাক্ষরতা দিবস উদযাপিত হয়। ১৯৭৩ সালেই বেসরকারি উদ্যোগে ঠাকুরগাঁওয়ে সাক্ষরতা অভিযান শুরু হয়। ১৯৭৩ সালে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের প্রধান অনুষ্ঠান করা হয় ঠাকুরগাঁও জেলায়। বঙ্গবন্ধুর আদেশে এ দিনে ঠাকুরগাঁওয়ের কচুবাড়ী-কৃষ্টপুরকে বাংলাদেশের প্রথম নিরক্ষরতামুক্ত গ্রাম ঘোষণা করা হয়।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশের বর্তমান সাক্ষরতার হার ৭৬ দশমিক ৮ শতাংশ। সাত বছর ও তদূর্ধ্ব প্রায় ২৩ দশমিক ২ শতাংশ জনগোষ্ঠী এখনও নিরক্ষর, যারা কখনও বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়নি বা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ঝরে পড়েছে। অথচ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য অর্জনে নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান ও কর্মমুখী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করা অত্যন্ত জরুরি।

সাক্ষরতা কর্মসূচির সার্বিক অবস্থা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা আইন ২০১৪ প্রণয়নের মাধ্যমে শিক্ষার সুযোগবঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞানদান, জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকায়ন, দক্ষ মানবসম্পদে পরিণতকরণ, আত্ম-কর্মসংস্থানের যোগ্যতা সৃষ্টি করা এবং বিদ্যালয়বহির্ভূত ও ঝরে পড়া শিশুদের শিক্ষার বিকল্প সুযোগ সৃষ্টি করা হয়। ১৫ বছর ও তার বেশি বয়সের নিরক্ষর নারী-পুরুষকে সাক্ষরজ্ঞানদান, জীবিকায়ন দক্ষতা প্রদান ও জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি হয়।

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতায় মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প (৬৪ জেলা) বাস্তবায়নের কাজ শেষ হয় ২০২২ সালের ৩০ জুন। এ প্রকল্পের আওতায় দেশের ৬৪ জেলার ২৪৮টি উপজেলায় ১৫-৪৫ বছর বয়সের ৪৪ দশমিক ৬০ লাখ নিরক্ষরকে সাক্ষর করা হয়।

চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির (পিইডিপি-৪) সাব-কম্পোনেন্টের আওতায় ৮ থেকে ১৪ বছর বয়সের বিদ্যালয়বহির্ভূত ১০ লাখ শিশুকে উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়। ইতোমধ্যে পিইডিপি-৩ থেকে আগত বিদ্যালয়বহির্ভূত ১ লাখ শিশুকে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়া কার্যক্রম শেষ হয়। অবশিষ্ট ৯ লাখের মধ্যে এ পর্যন্ত ৮ লাখ ২ হাজার ৫৩৬ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে এবং ২৫ হাজার ৭১২টি শিখন কেন্দ্রের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে পাঠদান কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এই অবস্থায় কর্মসূচির অর্থায়ন হচ্ছে না।

 দিবস পালন

সাক্ষরতা দিবসের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, আলোচনা অনুষ্ঠান, ক্রোড়পত্র প্রকাশ, সংবাদ সম্মেলন, পোস্টার প্রকাশ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় এ সংক্রান্ত টক-শো ও প্রতিবেদন প্রকাশ ইত্যাদি। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর তেজগাঁওয়ের প্রধান কার্যালয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে সকাল ১০টায় সাক্ষরতা দিবসের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব ফরিদ আহাম্মদ বলেছেন, শতভাগ সাক্ষরতা অর্জনে মন্ত্রণালয়ের নিরন্তর প্রয়াস অব্যাহত আছে।

নিউজ /এমএসএম

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
All rights reserved © UKBDTV.COM
       
themesba-lates1749691102