মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভোটে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা হলে কঠোর ব্যবস্থা দেবীগঞ্জ ও বোদায় উপজেলায় পাঠানো হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষতাভিত্তিক শিক্ষা এজেন্ডা কমনওয়েলথে প্রশংসিত কলাগাছের তন্তু থেকে পরিবেশ বান্ধব পলিথিন তৈরী করে চমক সৃষ্টি করেছে সাজ্জাদুল হজ্ব পালনকালে দোয়া কবুলের স্থান সমুহ ঠাকুরগাঁওয়ে টেকসই নদী ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ম‌হিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী সৈয়দা রা‌জিয়ার বসত ঘরে অগ্নিকাণ্ডে তত্বাবধায়ক নিহত গুণীজনদের সম্মানিত করা সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য- পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশে ভ্যাকসিন সেন্টার স্থাপনে অক্সফোর্ড গ্রুপের সহযোগিতা চেয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের সাথে বাংলাদেশ কনসাল জেনারেল এর মতবিনিময় অনুষ্ঠিত

শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার

চা-কন্যাদের লেখাপড়ার দ্বায়িত্ব নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন

মোঃ কাওছার ইকবাল, শ্রীমঙ্গল
  • খবর আপডেট সময় : বুধবার, ৪ অক্টোবর, ২০২৩
  • ১০৪ এই পর্যন্ত দেখেছেন

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিক সন্তানের লেখাপড়ার দ্বায়িত্ব নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজিব মাহমুদ মিঠুন। বিভিন্ন বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছয় চা শ্রমিক শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার দ্বায়িত্ব নিয়েছেন তিনি।

শ্রীমঙ্গল উপজেলার ভূড়ভূড়িয়া চা বাগানের ৬ ছয় জন শিক্ষার্থীর মধ্যে উদয়ন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী সৃষ্টি পাল, দশম শ্রেণীর ছাত্রী বৃষ্টি পাল, ৮ম শ্রেণীর পুর্নিমা দোষাদ, ৬ষ্ঠ শ্রেনীর তৃষা রবি দাশ, ৬ষ্ঠ শ্রেণীর কেয়া রবি দাশ ও কমলগঞ্জ সরকারি গণমহাবিদ্যালয়ে একাদশ শ্রেনীতে অধ্যয়নরত সৌরভি মৃধা।

ছয় শিক্ষার্থীর মধ্যে পুর্নিমা দোষাদ এর মা খুবই অসুস্থ,  স্কুল বন্ধ হলেই মাটির কাজ করে বাবার সাথে সে সাংসারিক কাজে সহায়তা করে, পাশাপাশি ছোট বোনের লেখাপড়ার দ্বায়িত্বও পালন করে যাচ্ছে। এছাড়াও অন্যান্য শিক্ষার্থীদের পরিবারও অনেকটা মানবেতর জীবনযাপন অতিবাহিত করছে। এমতাবস্থায় শ্রীমঙ্গলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজীব মাহমুদ মিঠুন নিজ কাঁধে নিলেন এই গুরু দ্বায়িত্ব।

দ্বায়িত্ব নেয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজীব মাহমুদ মিঠুন বলেন, দ্বায়িত্ব নেয়া বলতে, আসলে আমি যখন জানতে পারলাম অর্থের অভাবে ওদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তখনই আমি বিষয়টি আমলে নিলাম। খোঁজ নিয়ে জানতে পারলাম বিষয়টি এমনই, তখনই আমি দ্বায়িত্ব নিলাম। এর মধ্যে দু’জন ছাত্রী ভর্তি হতেই পারেনি। আমার কথা হলো, বর্তমান সরকারের সময় এমনও একজন থাকবে না, যার কিনা শুধুমাত্র অর্থের অভাবে লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাবে। আমি আমার রুটিন দ্বায়িত্বটা পালন করছি মাত্র। উপজেলা প্রশাসন থেকে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই এই বাচ্চাদের জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ায়। শিক্ষার্থীদেরও শর্ত দিয়ে বলেছি, লেখাপড়ায় ভালো করতে হবে।

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
All rights reserved © UKBDTV.COM
       
themesba-lates1749691102