মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভোটে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা হলে কঠোর ব্যবস্থা দেবীগঞ্জ ও বোদায় উপজেলায় পাঠানো হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষতাভিত্তিক শিক্ষা এজেন্ডা কমনওয়েলথে প্রশংসিত কলাগাছের তন্তু থেকে পরিবেশ বান্ধব পলিথিন তৈরী করে চমক সৃষ্টি করেছে সাজ্জাদুল হজ্ব পালনকালে দোয়া কবুলের স্থান সমুহ ঠাকুরগাঁওয়ে টেকসই নদী ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ম‌হিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী সৈয়দা রা‌জিয়ার বসত ঘরে অগ্নিকাণ্ডে তত্বাবধায়ক নিহত গুণীজনদের সম্মানিত করা সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য- পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশে ভ্যাকসিন সেন্টার স্থাপনে অক্সফোর্ড গ্রুপের সহযোগিতা চেয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের সাথে বাংলাদেশ কনসাল জেনারেল এর মতবিনিময় অনুষ্ঠিত

কষ্ট করে কোরআন পাঠে দ্বিগুণ সওয়াব

ইসলাম ডেস্ক
  • খবর আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৭৩ এই পর্যন্ত দেখেছেন

আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

مَثَلُ الَّذِي يَقْرَأُ الْقُرْآنَ وَهْوَ حَافِظٌ لَهُ مَعَ السَّفَرَةِ الْكِرَامِ الْبَرَرَةِ وَمَثَلُ الَّذِي يَقْرَأُ الْقُرْآنَ وَهْوَ يَتَعَاهَدُهُ وَهْوَ عَلَيْهِ شَدِيدٌ، فَلَهُ أَجْرَانِ ‏
কোরআনের হাফেজ পাঠক কোরআনের লিপিকার সম্মানিত ফেরেশতাদের মতো মর্যদার অধিকারী। আর কষ্ট হওয়া সত্ত্বেও যে ব্যাক্তি কোরআন পাঠ করে, সে দ্বিগুণ সওয়াব পাবে। (সহিহ বুখারি, সহিহ মুসলিম)

এ হাদিস থেকে যে শিক্ষা ও নির্দেশনাগুলো আমরা পাই

১. এ হাদিসে কোরআন তেলাওয়াতাকারীদের দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম প্রকার তেলাওয়াতকারী হলো, যে কোরআন তেলাওয়াত খুব ভালোভাবে রপ্ত করতে সক্ষম হয়েছে, এর অর্থ ও মর্ম সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করেছে, কোরআন হিফজ করেছে, সে আল্লাহর ওহি বহনকারী ফেরেশতাদের মতো মর্যাদার অধিকারী। প্রত্যেক মুসলমানেরই কোরআনের এ রকম তেলাওয়াতকারী হওয়ার চেষ্টা করা উচিত।

দ্বিতীয় প্রকারের তেলাওয়াতকারী তারা যারা তেলাওয়াত ভালোভাবে রপ্ত করতে পারেনি, যাদের তেলাওয়াত করতে কষ্ট হয় এবং কষ্ট করে ধীরে ধীরে কোরআন পড়ে, তারা দ্বিগুণ সওয়াব লাভ করবে; কোরআন তেলাওয়াতের সওয়াব এবং কষ্ট করার সওয়াব।

২. যারা কোরআনের জ্ঞান লাভ করেছে, কোরআন হিফজ করেছে, তাদেরও কর্তব্য বেশি বেশি কোরআন পাঠ করা এবং কোরআনের বক্তব্য ও মর্ম নিয়ে চিন্তাভাবনা করা। আল্লাহর ইচ্ছা ও নির্দেশনাগুলো বোঝার চেষ্টা করা। হাসান ইবনে আলি (রা.) বলতেন, তোমাদের পূর্ববর্তীরা কোরআনকে তাদের রবের পক্ষ থেকে পাঠানো পত্রের মতো মনে করতেন। তারা রাতে কোরআনের বক্তব্য নিয়ে চিন্তাভাবনা করতেন, দিনে সেগুলো বাস্তবায়ন করতেন। ইবনুল কায়্যিম (রহ.) বলেন, কোরআন পাঠ করা উচিত চিন্তা-ভাবনা করে, এর অর্থ ও মর্ম বুঝে যেমন মানুষ কারো পাঠানো পত্র বার বার পড়ে তার উদ্দেশ্য বোঝার চেষ্টা করে।

৩. আল্লাহর কিতাব সুন্দর করে পড়তে শেখা প্রত্যেক মুসলমানের অবশ্যকর্তব্য। প্রতিদিন অল্প হলেও কিছু সময় কোরআন পাঠ ও শিক্ষার জন্য আলাদা করে রাখা উচিত। কোনো শিক্ষকের সাহায্যে কোরআনের প্রতিটি আয়াত বুঝে বুঝে পড়া উচিত। রাসুল (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ তারা, যারা কোরআন শেখে ও শিক্ষা দেয়। (সহিহ বুখারি)
ইমাম মালেক (রহ.) মুওয়াত্তা কিতাবে বর্ণনা করেছেন, আব্দুল্লাহ ইবনে ওমরের (রা.) শুধু সুরা বাকারা অধ্যয়ন করতে সময় লেগেছিল আট বছর। এত সময় লেগেছিল তার শেখার ধীরগতির কারণে নয়, বরং কোরআনের অর্থ, মর্ম ও বিধিবিধান বুঝে বুঝে অধ্যয়ন করার কারণে। বায়হাকি (রহ.) শুআবুল ইমান কিতাবে ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণনা করেছেন, ওমর ইবনুল খাত্তাবের (রা.) সুরা বাকারা অধ্যয়ন করেতে সময় লেগেছিল বারো বছর। যে দিন তিনি সুরা বাকারা শেষ করেন, সেদিন উট জবাই করে সবাইকে খাওয়ান।

নিউজ /এমএসএম

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
All rights reserved © UKBDTV.COM
       
themesba-lates1749691102