শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ওয়াশিংটন বাংলাদেশ দূতাবাসে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত ওয়েলস আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত রাণীশংকৈলে প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত ঘুষ, দূর্নীতি, অনিয়ম ও তদবির বানিজ্য বরদাশত করা হবে না ছাতকে সড়ক দুর্ঘটনায় সঙ্গীত শিল্পী পাগল হাসান সহ নিহত ২ আগামী বছর মুজিবনগর দিবসের পুর্বে মুজিবনগরকে আন্তর্জাতিক মানের পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে—-আ ক ম মোজাম্মেল হক বৃহস্পতিবার থেকে দেশব্যাপী প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী শুরু পঞ্চগড়ে সময় টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্‌যাপিত লোকসভা নির্বাচন উপলক্ষে বাংলাবান্ধা চেকপোস্ট ৩ দিনের ছুটি নবীগঞ্জে লটারির মাধ্যমে কৃষকের তালিকা তৈরী

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী

সবাই ফিরে গেছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী আমেরিকা বসে আছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • খবর আপডেট সময় : শনিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৪৬ এই পর্যন্ত দেখেছেন

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, সব দেশের প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য দিয়ে আমেরিকা থেকে দেশে ফিরে গেছেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী বসে আছেন। কী মজা না? উনি কেন বসে আছেন? আবার বলেন আমেরিকা না গেলে কী হবে? বাংলাদেশের গার্মেন্টসের সবচেয়ে বড় ব্যবসা হয় আমেরিকায়। তারপর ইউরোপীয় ইউনিয়ন। সেই ব্যবসা চলে যাবে, এই শিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে।

শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানের ওপর মামলা ও তার সাজার প্রতিবাদে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। নব্বইয়ের ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য এবং ছাত্রদলের সাবেক নেতারা এ সভার আয়োজন করেন।

খসরু বলেন, আমাদের জেলে যাওয়ার কারণ একটাই, যে কারণে খালেদা জিয়া জেলে আছেন, হাজারো নেতাকর্মী জেলে আছেন, যে কারণে হাজার হাজার মামলা। অনেকের শাস্তি হয়েছে, অনেকের শাস্তি হওয়ার পথে। এর একমাত্র কারণ ভোট চুরি করতে হবে, জনগণকে নির্বাচনের বাইরে রেখে ভোট চুরি করে ক্ষমতায় যেতে হবে।

খালেদা জিয়ার স্থাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে উল্লেখ করে খসরু বলেন, তাকে বাইরে যেতে দেওয়া হছে না। তাকে চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এখনো নেত্রীর মুক্তি নেই, চিকিৎসা নেই। তার স্বাস্থ্যের ক্রমাবনতির মাধ্যমে মৃত্যুর দিলে ঠেলো দেওয়া হচ্ছে। আজ দেখলাম শেখ হাসিনা বলেছেন আমাদের নেত্রীকে আবারও জেলে যেতে হবে। তারপর কোর্টের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত হবে ৷ তার মানে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

‘তার মানে এই দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাঁধে নিয়েছেন। চিকিৎসাবঞ্চিত করার এই দায়িত্বভার শেখ হাসিনাকেই নিতে হবে। আজ শেখ হাসিনা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাকে তার পরিণতির দিকে নিয়ে যাবে। দেশের মানুষ আর এক মুহূর্ত অপেক্ষা করতে রাজি নয়। আমরা যখন রাস্তায় চলাফেরা করি তখন আমাদের জিজ্ঞাসা করে আর কয়দিন? কয়েক মাস না। বাংলাদেশের মানুষ বাঁচতে চায়।’ বলেন খসরু।

এই বিএনপি নেতা আরও বলেন, বিশ্বের গণতান্ত্রিক দেশগুলোরও ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেছে। ভিসানীতি ঘোষণা হয়েছে, চালুও হয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি এসে বাংলাদেশের বিভিন্ন লোকজনের সঙ্গে মিটিং করে ব্রাসেলসে ফিরে গিয়ে বলেছেন তারা বাংলাদেশে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না, কারণ এদেশে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নেই।

দেশের মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়েছে দেশের গণতন্ত্রকে বাঁচানোর জন্য।

মার্কিন ভিসানীতিতে বিচার বিভাগকে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে, বিশ্বের কোনো দেশে দেখেছেন বিচারকদের ভিসানীতির আওতায় এনেছে? সরকার ধংসের পথে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করের তিনি।

সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

নিউজ /এমএসএম

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
All rights reserved © UKBDTV.COM
       
themesba-lates1749691102