বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৩:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মধ্যরাতেও বিদ্যুৎহীন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় আশুরায় যেভাবে পতন ঘটেছিল ফেরাউনের ব্রিটেনকে ‘সত্যিকারের ইসলামপন্থি’ দেশ বলে বিতর্কের মুখে ট্রাম্পের রানিংমেট কোটা আন্দোলনে প্রাণহানির তদন্ত চায় জাতিসংঘ শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্রে মানববন্ধন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার আহ্বান পুলিশের লন্ডনে আল্লামা দুবাগী ছাহেব কিবলাহ (রহ.)’র ঈসালে সাওয়াব মাহফিল অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতির উদ্দেশে দেয়া পূর্ণাঙ্গ ভাষণ বিশ্ব মিডিয়ায় গুরুত্ব পাচ্ছে বাংলাদেশে কোটা আন্দোলনে সহিংসতা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ‘কমপ্লিট শাটডাউনে’ সমর্থন বিএনপির

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির উৎপাদন বন্ধ

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক
  • খবর আপডেট সময় : বুধবার, ৩০ আগস্ট, ২০২৩
  • ৮৮ এই পর্যন্ত দেখেছেন

পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির উৎপাদনশীল ১১১৩ নম্বর কোল ফেইসে উত্তোলনযোগ্য কয়লার মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ায় বুধবার (৩০আগস্ট) সকাল থেকে কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে গেছে।

এরপর ১৪১২ নম্বর ফেইস থেকে কয়লা উত্তোলন করা হবে। ১১১৩ নম্বর ফেইসে ব্যবহৃত উৎপাদন যন্ত্রপাতি সরিয়ে ১৪১২ নম্বর ফেইসে স্থাপন করে পুনরায় উৎপাদনে যেতে দুই মাস সময় লাগতে পারে।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেডের (বিসিএমসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. সাইফুল ইসলাম সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান।

তিনি বলেন, খনি ভূ-গর্ভে ১১১৩ নম্বর কোল ফেইস থেকে কয়লা উৎপাদন শুরু হয়েছিল গত ২৫ এপ্রিল। এই ফেইস থেকে ৩ লাখ ৭৫ হাজার টন কয়লা উত্তোলন করা হয়েছে। এরপর ১৪১২ নম্বর ফেইস থেকে কয়লা উত্তোলন করা হবে।

একটি ফেইসের কয়লা উত্তোলন শেষ হলে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি সরিয়ে নিয়ে নতুন ফেইসে স্থাপনের জন্য স্বাভাবিকভাবে ৪০-৪৫ দিন সময় লাগে। এছাড়া ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ক্রটি-বিচ্যুতি ধরা পড়লে মেরামতের জন্য বাড়তি সময়ের প্রয়োজন হয়। পুনরায় উৎপাদনে যেতে দুই মাস সময় লাগতে পারে বলে তিনি জানান।

এদিকে, বড়পুকুরিয়ার কয়লার উপর নির্ভরশীল পার্শ্ববর্তী বড়পুকুরিয়া ৫২৫ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী মো. আবু বকর সিদ্দিক জানান, বিদ্যুৎ কেন্দ্রের তিনটি ইউনিটের মধ্যে ১নং ও ২নং ইউনিট দুটি বন্ধ রয়েছে। ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৩নং ইউনিট চালু রেখে ১৮০-২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে। এতে দৈনিক কয়লা লাগছে প্রায় ২ হাজার টন। কয়লাখনি ইয়ার্ড ও বিদ্যুৎ কেন্দ্র ইয়ার্ডে ১ লাখ ১০ হাজার টন কয়লা মজুদ রয়েছে। যা দিয়ে ৩নং ইউনিটটি দুইমাস চালু রাখা যাবে।

প্রসঙ্গত, বড়পুকুরিয়া ৫২৫ মেগাওয়াট তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির তিনটি ইউনিট চালু রেখে স্বাভাবিক উৎপাদনের জন্য দৈনিক প্রায় ৫ হাজার ২০০ টন কয়লার প্রয়োজন হয়।

তবে তিনটি ইউনিট একই সঙ্গে চালানো হয় না। কয়লার সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলে দুটি ইউনিট চালু রেখে ৩০০ থেকে ৩৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়। এই পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে দৈনিক কয়লার প্রয়োজন প্রায় ৪ হাজার মে.টন।

নিউজ /এমএসএম

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
All rights reserved © UKBDTV.COM
       
themesba-lates1749691102