বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ছাত্র আন্দোলনের নামে নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা—-ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদ দেশকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করতেই বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা কেন্দ্রীয় ডাটা সেন্টার জ্বালিয়ে দিয়েছে—-তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী প্রেসিডেন্ট প্রার্থীতা থেকে সরে দাঁড়ালেন বাইডেন দেশব্যাপী নাশকতায় বিএনপি-জামায়াত জড়িত আরো তিন দিনের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত ফিফা র‍্যাংকিংয়ে সেরা আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল কোথায়? শিক্ষার্থীদের লাশ বানিয়ে ফায়দা লোটার অপচেষ্টায় বিএনপি-জামায়াত: কাদের পরিস্থিতি বুঝে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে : পলক কোটা আন্দোলনকারীদের প্রস্তাব গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী: আইনমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার জন্য দুই মন্ত্রীকে দায়িত্ব দিলেন প্রধানমন্ত্রী

গর্ভপাতের পর জন্মনিয়ন্ত্রণ কি জরুরি, করণীয়

সংবাদদাতার নাম :
  • খবর আপডেট সময় : সোমবার, ৭ মার্চ, ২০২২
  • ১৬৩ এই পর্যন্ত দেখেছেন

লাইফস্টাইল ডেস্ক: অনেক নারী নানা কারণে গর্ভপাত করেন। গর্ভপাতের পর অবশ্যই একটি জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করা উচিত।

এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানিয়েছেন বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের প্রসূতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোসা.আফরোজা সরকার জলি।

গর্ভপাত করা হয় অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণের কারণে। ফলে আবারও যদি সেই ঝুঁকি থেকে যায়, তাহলে গর্ভপাত মাতৃমৃত্যুকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

সেজন্য গর্ভপাতের পর একটি জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করা উচিত। এখন কি ধরনের পদ্ধতি গ্রহণ করতে হবে, তা নির্ভর করে রোগীর বয়স, তার সন্তানের সংখ্যা, জীবিত সন্তানের সংখ্যা, অন্য কোনো রোগ কিংবা শারীরিক জটিলতা আছে কি না, ইত্যাদি বিষয়ের ওপর। এজন্য চিকিৎসকরে সাথে কাউন্সেলিং করতে হবে।

জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল, ইনজেকশন, আইওসিটি অথবা ইমপ্ল্যান্ট— যেকোনো একটি পদ্ধতি গর্ভপাতের পর দেওয়া হয়ে থাকে। এটি কোনো নারীর দুটি সন্তান আছে, আর সন্তান নিতে না চাইলে এ পদ্ধতির যেকোনো একটি গ্রহণ করতে পারেন। তবে দীর্ঘমেয়াদে না চাইলে আইওসিটি বা ইমপ্ল্যান্ট অন্ততপক্ষে ইনজেকশন দিয়ে দেওয়া হয়।

কেউ হঠাৎ কনসিভ করলে, ভবিষ্যতে আরও সন্তান নেওয়া ইচ্ছা থাকলে তাকে পিল বা ইনজেকশন দেওয়া হয়। গর্ভপাত পরবর্তী প্রত্যেক নারীর একটি চিকিৎসা বা সেবা দেওয়া হয়। এটিকে পোস্ট-পার্টাম কেয়ার বলা হয়।

গর্ভপাতেও আমাদের দেশের মাতৃমৃত্যু কম নয়। এজন্য দেশে গর্ভপাতের পরবর্তী সময় পোস্ট-অ্যাবরশন কেয়ার অর্থাৎ প্যাক নামে সেবা চালু হয়েছে। প্যাকের মধ্যে কিছু বিষয় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যেমন,

১. ট্রিপেড অফ কম্প্লিকেশন অফ অ্যাবরশন অর্থাৎ গর্ভপাতের পর যেসব জটিলতা দেখা দেয়, সেগুলো চিকিৎসা।

২. পোস্ট-অ্যাবরশন কাউন্সেলিং অ্যান্ড ফ্যামেলি প্লানিং অ্যাডভাইস। অর্থাৎ তাকে কাউন্সিলিং করে একটি জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি দেওয়া।

৩. যে অ্যাবরশনের সাথে আমাদের সেক্সুয়ালি ট্রান্সমিটেড ডিজিজ বা পিআইডি অনেকটাই সম্পর্কযুক্ত, সেজন্য রোগীদের এ সময় পিআইডি বা এসটিডির কোনো চিকিৎসা লাগলে, তা দেওয়া।

৪. সবশেষে রিহ্যাবিলিটিশন বা পুনর্বাসন। গর্ভপাতজনিত জটিলতার কারণে সমস্যা বা অসুবিধা দেখা দিলে, রোগীর পুনর্বাসনে যা যা লাগে তা করা হয়। যেমন, আগে রেক্টোভাইজানাল ফিস্টুলা, ভেসিকোভাইজানাল ফিস্টুলা ছাড়াও নানা জটিলতা দেখা দিত। এসবের সেবা দেওয়া হয়। এ ছাড়া সাবপার্টিলিটি হলে রোগী স্থায়ী পুনর্বাসন লাগে, যা প্যাক সেবার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

সূত্র: ডক্টর টিভি

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
All rights reserved © UKBDTV.COM
       
themesba-lates1749691102